সিলেটে জেলা পরিষদ নির্বাচন: শুরু হয়েছে তোড়জোড়!

বুধবার, ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ২:৩৩ পূর্বাহ্ণ | 16

সিলেটে জেলা পরিষদ নির্বাচন: শুরু হয়েছে তোড়জোড়!

টুডে নিউজ ডেস্ক::

সিলেটে জেলা পরিষদ নির্বাচনের তফশিল ঘোষণার পর থেকে শুরু হয়েছে তোড়জোড়। পরিষদের চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন পেতে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা সরব হয়ে ওঠেছেন।



এতদিন জেলা পরিষদ নিয়ে কারো আগ্রহ না থাকলেও তফশিল ঘোষণার পর অনেকেই দলীয় মনোনয়ন লাভের চেষ্টা শুরু করেছেন।নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগে হিসেব-নিকেশ চললেও নিরব বিএনপি।আপাতত জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চলমান আন্দোলন নিয়েই ভাবনা তাদের।তাই গেলবারের মতো এবারও জেলা পরিষদ নির্বাচনে ওয়াকওভার দিতে যাচ্ছে দলটি।নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দাবি নিয়ে কেন্দ্রের নির্দেশে আন্দোলনে ব্যস্ত রয়েছে স্থানীয় বিএনপি।

এদিকে,কেউ হতে চান সংসদ সদস্য-আবার কেউ মেয়র।এই দুই পদেই এতোদিন চোখ ছিল সিলেট আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের।কিন্তু জেলা পরিষদের তফশিল ঘোষণার পর থেকে মতের পরিবর্তন ঘটেছে অনেকের।জেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের অনেকেই চোখ ফেলেছেন স্থানীয় সরকারের গুরুত্বপূর্ণ এই প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান পদে।নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিচ্ছে না-এটা প্রায় নিশ্চিত হয়ে যাওয়ায় ফাঁকে মাঠে গোল দিতে তাদের মাঝে শুরু হয়েছে তোড়জোড়।কোনো ভাবে দলীয় মনোনয়ন বাগিয়ে নিতে পারলেই জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদ নিশ্চিত-এমনটাই মনে করছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা।তাই দলীয় মনোনয়ন পেতে অনেকেই কেন্দ্রে চালিয়ে যাচ্ছেন নিরব লবিং।

এখন পর্যন্ত জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে যাদের নাম আলোচিত হচ্ছে তাদের মধ্যে রয়েছেন-জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান,মহানগর সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ ও সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ।

এর মধ্যে মাসুক উদ্দিন আহমদ জানিয়েছেন-তিনি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে আগ্রহী নন।আগামী সংসদ নির্বাচনে সিলেট-৫ আসনে তিনি মনোনয়ন চাইবেন।

নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-২ আসনে বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থী ইলিয়াস আলীকে পরাজিত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন শফিকুর রহমান চৌধুরী। এরপর টানা দুই নির্বাচনে আসনটি মহাজোটের শরীক জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দেওয়ায় মনোনয়ন বঞ্চিত থাকেন তিনি।এবারও তিনি আসনটিতে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী। তবে দলীয় প্রধান,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দিলে তিনি নির্বাচনে আগ্রহী বলে জানিয়েছেন।

শফিকুর রহমান চৌধুরী বলেন,শেখ হাসিনা আমাকে সংসদ সদস্য করেছিলেন।তিনি আমাকে দলের দায়িত্ব দিয়েছেন।তিনি আমাকে যেখানে রাখতে চাইবেন সেখানেই থাকবো।

জেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন চাওয়ার বিষয়টি স্পষ্ট করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান।তিনি বলেন, চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন চাইবো।মনোনয়ন পেলে নির্বাচন করবো।

সিলেটের রাজনীতিতে ক্লিন ম্যান খ্যাত নাসির খান জেলা পরিষদের চেয়ারম্যন পদে নির্বাচন করার আগ্রহ ব্যক্ত করায় তার অনুসারীদের মাঝে বেশ উৎসাহ পরিলক্ষিত করা যাচ্ছে।

অপরদিকে,চেয়ারম্যান পদে অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজের নাম লোক মুখে উচ্চারিত হলেও এখনো তিনি সিদ্ধান্তহীনতায় রয়েছেন বলে জানা গেছে।

জেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ গ্রহন না করা নিয়ে সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল কাইয়ূম চৌধুরী জানিয়েছেন,জেলা পরিষদ নির্বাচনে তাদের দল অংশ নেবে না। দলের কেউ অংশ নিলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য,ঘোষিত তফশিল অনুযায়ী জেলা পরিষদ নির্বাচনের মনোনয়ন দাখিল আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর।আর ভোট গ্রহণ ১৭ অক্টোবর।ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দলীয় বা স্বতন্ত্র মনোনয়ন প্রত্যাশীরা আগামী ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মনোনয়ন ফরম কিনতে পারবেন।এরপর নৌকার প্রার্থীর নাম মনোনয়ন বোর্ডের সভায় ঘোষণা করা হবে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

Development by: webnewsdesign.com