করোনা ঝুঁকিতেও বাংলাদেশ, পাকিস্তান, দক্ষিণ কোরিয়ায় মসজিদে জামাত

শুক্রবার, ০৮ মে ২০২০ | ১০:৩০ অপরাহ্ণ | 81

করোনা ঝুঁকিতেও বাংলাদেশ, পাকিস্তান, দক্ষিণ কোরিয়ায় মসজিদে জামাত

সরকার মসজিদে জামাতে নামাজ আদায়ের বিধিনিষেধ তুলে নেওয়ার পর প্রথম জুমার জামাতে মুসল্লীদের উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে। শুক্রবার (৮ মে) রাজধানী ঢাকা ও শহরতলীর মসজিদগুলোতে মুসুল্লীদের ভিড় ছিল লক্ষণীয়। জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে স্বাস্থ্যবিধি মানা হলেও অন্যান্য মসজিদগুলোতে তেমনটা দেখা যায়নি। তবে দীর্ঘ একমাস পরে মসজিদে নামাজ আদায় করতে পেরে খুশি মুসল্লিরা।

পাকিস্তান ও দক্ষিণ কোরিয়াতেও লকডাউন নিষেধাজ্ঞার পর আজকেই প্রথম মসজিদে জুমার জামাত হল। পাকিস্তান সংক্রমণ বাড়লেও দেশটির সরকার নিষেধাজ্ঞা শিথিল করেছে। দেশটিতে সরকারের সিদ্ধান্ত বিরোধীদের সমালোচনার মুখে পড়েছিল।



মসজিদে জামাতে নামাজে নিষেধাজ্ঞা শিথিলের সরকারি এই সিদ্ধান্ত নিয়ে লোকেরা মিশ্র অনুভূতি প্রকাশ করেছে, মুসলিমদের পবিত্র রোজা রমজান মাসে মসজিদে নামাজ পড়ার সুযোগকে স্বাগত জানিয়েছে অনেকে। তবে কেউ কেউ সতর্কতারও আহ্বান জানিয়েছে।

জাতীয় মসজিদ বাইতুল মোকাররমে নামাজ আদায় করতে আসা এক মুসল্লি শাহ পরান বারী বলছিলেন, ‘একমাস পরে জুম্মা (শুক্রবার) নামাজের জন্য এখানে এসে আমি খুব আনন্দিত। তবে আমি এটাও স্বীকার করেছি যে এই সিদ্ধান্ত দেশের করোনভাইরাস সঙ্কটকে আরো খারাপ করতে পারে।’

তিনি আরো বলেন, ‘এটি আমাদের জাতীয় মসজিদ তাই আমরা সামাজিক দূরত্ব এবং অন্যান্য নির্দেশিকাগুলো অনুসরণ করে লোকদের নামাজ আদায় করতে দেখছি। তবে বাংলাদেশে হাজার হাজার মসজিদ রয়েছে যেখানে আমি জানি এই বিধিগুলি অনুসরণ করা হবে না। সরকারকে পরিস্থিতি গুরুত্বের সাথে পর্যবেক্ষণ করতে হবে।’

বায়তুল মোকাররম মসজিদের মূল ফটকে একটি বিশেষ জীবাণুনাশক সিস্টেম বসানো হয়েছিল এবং লোকেরা সারিবদ্ধভাবে মসজিদ প্রাঙ্গণে প্রবেশ করেছিল। ভিতরে, তাদের একে অপরের থেকে প্রস্তাবিত দূরত্ব বজায় রাখতে হয়েছিল।

ঢাকার অন্যান্য কয়েকটি মসজিদও একই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছিল। তবে মূলধারার গণমাধ্যম এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে নিশ্চিত করা হয়েছে যে, বাংলাদেশের অন্যান্য অংশে মসজিদে এ জাতীয় পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

এ বিষয়ে জামিয়াত ওলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সহ-সভাপতি মাওলানা আবদুর রব ইউসুফি বলছিলেন, ‘যেহেতু সরকার বাজার ও শিল্প কারখানা খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তাই আমরা মসজিদগুলোও আবার চালু করার পক্ষে ছিলাম। সরকার এটি ভাল সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’ তবে তিনি জনগণকে সরকারের নির্দেশিকা অনুসরণ করতে এবং মহামারিটি বন্ধ করার জন্য প্রার্থনা করার আহ্বান জানান।

এদিকে পাকিস্তানে শুক্রবার দেশজুড়ে মসজিদে হাজার হাজার লোক ভিড় করে। দেশটিতে এদিন নতুন করে ১ হাজার ৮০০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে পাকিস্তানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এতে সামগ্রিকভাবে দেশটিতে আক্রান্তের  সংখ্যা ২৭ হাজারের কাছাকাছি পৌঁছেছে এবং ৬০০ এরও বেশি লোক মারা গেছে।

দক্ষিণ কোরিয়ায়ও নিষেধাজ্ঞা শিথিল করার পর মুসলমানরা মসজিদে নামাজ আদায় করেছেন। কয়েক মাসের নিষেধাজ্ঞার পর এদিন মসজিদে মসজিদে জুমার নামাজ পড়েছেন তারা।

করোনাভাইরাস বিস্তার রোধের প্রচেষ্টার অংশ হিসাবে দেশটি জানুয়ারিতে কঠোর সামাজিক দূরত্বের ব্যবস্থা কার্যকর করেছিল। সোমবার, সিওল-ভিত্তিক কোরিয়া মুসলিম ফেডারেশন ঘোষণা করেছিল যে, মে থেকে জুমার নামাজের জন্য এবং রমজানে বিশেষত তারাবীহ নামাজের জন্য মসজিদগুলো আবারো চালু হবে।

সৌজন্যে : কালের কণ্ঠ

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

Development by: webnewsdesign.com