মাঝখানে খুঁটি রেখেই চলছে সড়ক সংস্কার !

বুধবার, ২৮ অগাস্ট ২০১৯ | ১২:৫২ পিএম | 75

মাঝখানে খুঁটি রেখেই চলছে সড়ক সংস্কার !

প্রায় সাত বছর ধরে ভাঙাচোরা অবস্থায় থাকা সুনামগঞ্জে দিরাই পৌর শহরের প্রধান সড়ক সংস্কার হচ্ছে। সরু সড়ক হচ্ছে প্রশস্ত। তবে সড়কের মাঝখানের বৈদ্যুতিক খুঁটিগুলো রয়ে গেছে আগের জায়গায়ই। ফলে সড়ক প্রশস্ত হলেও তা সুবিধার বদলে উল্টো দুর্ঘটনার কারণ হতে পারে বলে শঙ্কা এলাকাবাসীর।

দিরাই পৌরসভা এবং বিদ্যুৎ বিভাগের মধ্যে সমন্বয়হীনতার কারণে মাঝখানের ১২ টি খুঁটি রেখেই চলছে এ সংস্কার কাজ।



দিরাই পৌরসভা সূত্রে জানা গেছে, দিরাই শহরের বাসস্ট্যান্ড থেকে থানা পয়েন্ট পর্যন্ত সড়কটি কলেজ রোড হিসেবে পরিচিত। এটি শহরের প্রধান সড়ক। গত সাত বছর কোনও সংস্কার হয়নি। এত দিন গেছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) এবং দিরাই পৌরসভার মধ্যে ঠেলাঠেলিতে। কেউ-ই এই সড়কের কাজ করতে রাজি ছিল না। এলজিইডির দাবি ছিল, যেহেতু এটি পৌর শহরের ভেতরে, তাই তারা আর কাজ করতে পারবে না। পৌরসভার কথা ছিল, যেহেতু এলজিইডি সব সময় এই সড়কের কাজ করেছে, তাই তাদেরই সংস্কার করতে হবে। তবে শেষ পর্যন্ত পৌরসভা কাজ করতে রাজি হয়। সে অনুযায়ী এ বছরের প্রথম দিকে সড়ক সংস্কারের জন্য একটি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়। কিন্তু ঠিকাদারকে সবকিছু বুঝিয়ে দেওয়ার পর কাজ আটকে যায় সড়কে বিদ্যুতের খুঁটির কারণে।

পৌর কর্মকর্তারা বলছেন, একসময় ওই সড়ক সরু ছিল। এখন ৩২ ফুট প্রশস্ত হবে। এ কারণে সড়কের মধ্যে বিদ্যুতের ১২টি খুঁটি সরাতে হবে। এ জন্য পাঁচ মাস আগে বিদ্যুৎ বিভাগকে চিঠি দেওয়া হয়। কিন্তু তারা কোনও উদ্যোগ না নেওয়া এখন খুঁটিগুলো যেভাবে আছে সেভাবে রেখেই কাজ শুরু করা হয়েছে।

সম্প্রতি সরেজমিন দেখা গেছে, দিরাই পৌর শহরের প্রবেশমুখেই বাসস্ট্যান্ড। এরপর বাঁ দিকে কলেজ রোড হয়ে শহরের ভেতরে যেতে হয়। এটাই মূল সড়ক। বাসস্ট্যান্ড থেকে থানা পয়েন্ট পর্যন্ত দূরত্ব মাত্র ৬৮৬ মিটার। সড়কের দুই পাশে রয়েছে দোকানপাট আর মানুষের ঘরবাড়ি। সড়কের বিভিন্ন স্থানে গর্ত হয়ে পানি জমে আছে। কোথাও কোথাও কাদা আর পানি মিলেমিশে একাকার হয়ে আছে। এখন সড়কের দক্ষিণ দিকে ড্রেনের কাজ শেষে সড়ক ঢালাইয়ের কাজ শুরু হয়েছে। কিন্তু ঢালাইয়ের ভেতরেই রয়েছে বিদ্যুতের খুঁটি। কাজ শেষ হলে এসব খুঁটির কারণে যান চলাচলে সমস্যা হবে। ঘটতে পারে দুর্ঘটনা।

দিরাই উপজেলার বাসিন্দা সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য মাসুদ চৌধুরী বলেন, ‘সড়কের কাজ শুরু হওয়ায় আমরা খুশি। তবে বিদ্যুতের পিলারগুলো এখনই সরানো উচিত। নাহলে পরে দেখা যাবে এ নিয়ে কেউ কোনও কথা বলছে না। এসব খুঁটির কারণে নানা দুর্ঘটনা ঘটবে।’

দিরাই পৌরসভার মেয়র মোশারফ মিয়া বলেন, এই সড়ক সংস্কারে প্রায় চার কোটি টাকার কাজ হচ্ছে। কাজ শুরু আগেই বিদ্যুতের খুঁটিগুলো সরাতে বিদ্যুৎ বিভাগকে চিঠি দেওয়া হয়। তখন তারা জানায়, এটা পৌরসভার খরচে সরাতে হবে। তবে এ জন্য পৌরসভার কোনও বাজেট নেই। পরে বিদ্যুৎ বিভাগ আবার চিঠি দিতে বলে। চিঠি দেওয়া হলেও কোনও ফল হয়নি। মেয়র বলেন, ‘সড়কের যা অবস্থা, মানুষকে আর কত কষ্ট দেব। এখন বাধ্য হয়েই কাজ শুরু করতে হয়েছে।’

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড সিলেট অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী প্রবীর কুমার দে বলেন, ‘নিয়ম অনুযায়ী এসব খুঁটি পৌরসভার ব্যয়ে সরানোর কথা। কিন্তু তারা প্রকল্পে এ জন্য কোনও বাজেট রাখেনি। এটা তাদের ত্রুটি। এখন আমাদের খরচে খুঁটিগুলোর সরানোর জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অনুমোদন চেয়েছি। অনুমোদন পেলে খুঁটিগুলো সরানো হবে। তবে এ জন্য দুই-তিন মাস সময় লাগবে।’

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

Development by: webnewsdesign.com