সিলেটে বাড়ছে নদ-নদীর পানি: ফের বাড়ছে আতঙ্ক!‎

সোমবার, ০৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৩:০০ পূর্বাহ্ণ | 40

সিলেটে বাড়ছে নদ-নদীর পানি: ফের বাড়ছে আতঙ্ক!‎

নিজস্ব প্রতিবেদক:

সিলেটে আবারও থেমে থেমে দিনে ও রাতে ভারী বৃষ্টি শুরু হয়েছে।বৃষ্টির ফলে আবারও বাড়ছে নদ-নদীর পানি টানা কয়েক দফা বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ সিলেট যখন ঘুরে দাঁড়াচ্ছে ঠিক তখনই আবার আতঙ্ক ছড়াচ্ছে শুরু হওয়া এই বৃষ্টি।ভারতীয় রাজ্য গুলোতে ভারী বৃষ্টির ফলে সিলেটে নামছে পাহাড়ি ঢল।বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র বলছে- সিলেট বিভাগের সুনামগঞ্জ ও সিলেট জেলা সদরের নদ-নদী গুলোতে পানি দ্রুত বাড়ছে। চলতি সপ্তাহেই এখানকার নদী-তীরবর্তী ও পাহাড়ি এলাকা গুলোতে স্বল্প স্থায়ী বন্যা শুরু হতে পারে।



সিলেট আবাওয়া অফিসের সিনিয়র আবহাওয়াবিদত সাঈদ আহমদ চৌধুরী বলেন,৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এই বৃষ্টি অব্যাহত থাকবে।বৃষ্টি হবে আগামী সপ্তাহেও। তবে এখন বন্যার কো্ন পূর্ভাবাস পাননি বলে জানিয়েছেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের সিলেট কার্যালয়ের উপ নির্বাহী প্রকৌশলী একেএম নিলয় পাশা।বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান ভূইয়া গণমাধ্যমকে বলেন,উজানে (ভারতে) ব্যাপক বৃষ্টি শুরু হয়েছে।দেশের ভেতরেও বৃষ্টি বাড়ছে।ফলে তিস্তা অববাহিকা ও সিলেট বিভাগের কয়েকটি স্থানে চলতি সপ্তাহে বেশির ভাগ সময় জুড়ে বন্যা হতে পারে।

তবে বৃষ্টি ও বন্যার পানি বেশি দিন স্থায়ী হওয়ার আশঙ্কা কম বলে জানান আরিফুজ্জামান ভূইয়া।আবহাওয়া অধিদপ্তরের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী,মৌসুমি বায়ু সক্রিয় হওয়ায় সিলেটের বিভিন্ন স্থানে আরও কয়েক দিন ধরে বৃষ্টিপাত হতে পারে।আজও (রবিবার) সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় বৃষ্টি হতে পারে।

এদিকে,ভারতে ভারী বৃষ্টি পাতের কারণে বাংলাদেশের সব নদীতে পানি বাড়ার পূর্বাভাস দিয়েছে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (বাপাউবো)।পাউবো সূত্র জানায়-আগামী ৪৮ ঘণ্টায় দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল (সিলেট) ও তৎসংলগ্ন ভারতের কিছু স্থানে ভারী বৃষ্টি পাতের সম্ভাবনা রয়েছে।ফলে এ সময়ে সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলার প্রধান নদ-নদীর পানি সমতল সময় বিশেষে দ্রুত বাড়তে পারে।গত জুনের বন্যায় সিলেট ও সুনামগঞ্জের প্রায় ৮০ শতাংশ এলাকা তলিয়ে যায়।এই দুই জেলার বন্যা কবলিত এলাকায় ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় দেখা দেয়।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

Development by: webnewsdesign.com