ব্যবসায়ীর ৪ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ মৌলভীবাজারের নারী লিপার বিরুদ্ধে!

রবিবার, ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ৯:৪৪ অপরাহ্ণ | 196

ব্যবসায়ীর ৪ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ মৌলভীবাজারের নারী লিপার বিরুদ্ধে!

সিলেট নগরীর সুরমা মার্কেটের ব্যবসায়ী তারেক আহমদের চার লাখ টাকা আত্মসাত করতে মৌলভীবাজারের এক নারীর ভয়ংকর প্রতারণা শুরু করেছেন। ওই প্রতারক নারী মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার বৃন্দাবনপুর গ্রামের আব্দুল খালিকের মেয়ে লিপা আক্তার।

জানা গেছে, ব্যবসায়ী তারেক আহমদের কাছ থেকে ব্যবসার জন্য ৪ লক্ষ টাকা ধার নেন লিপা আক্তার। তারেক উপস্থিত সাক্ষীগণের সামনে লিখিত স্ট্যাম্প করে লিপা আক্তারকে ৪ লক্ষ টাকা প্রধন করেন। সেই টাকা উদ্ধার করতে মামলাসহ বিভিন্ন ধরণের হয়রানির শিকার হচ্ছেন তারেক। লিপা আক্তার তারেক আহমদকে টাকা দেওয়ার কথা বলে মৌলভীবাজার সদরের নিলীমা আক্তারের বাড়ির ভাড়াটিয়া বাসায় নেন। সেখানে কিছু যুবকদের নিয়ে তারেকের হামলা করে কাতে ব্লাকমেইল করার চেষ্টা চালানো হয়। পরে তারেক কৌশলে সেখান থেকে পালিয়ে সিলেটে আসেন। উক্ত ঘটনায় সিলেট কোতোয়ালী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন তারেক। যার জিডি নং-১০/৫১।



কিন্তু লিপা আক্তার টাকা আত্মসাত করতে কিছুতেই তারেকের পিছো ছাড়েননি। সর্বশেষ সিলেট আদালতে তারেকের বিরুদ্ধে এক সাজানো মামলা দায়ের করেন। এই মামলাটি বর্তমানে সিলেট মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ তদন্ত করছে। অন্যদিকে লিপা তারেকের বিরুদ্ধে একটি নাম মাত্র ভুঁইফোড় অনলাইন নিউজ পোর্টালে মিথ্যা তথ্য দিয়ে একটি সংবাদ প্রকাশ করান। সেই অনলাইন নিউজ পোর্টালের সংবাদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়েরর প্রস্তুতি নিচ্ছেন তারেক।

অভিযোগের প্রকাশ যে, প্রতারক লিপা আক্তার মৌলভীবাজার সদরের নিলীমা আক্তারের বাড়ির ভাড়াটিয়া ছিলেন। সেখান থেকে বাড়ির মালিকের ভাড়া না দিয়ে পালিয়েছেন। তার একটি ১১ বছরের মেয়ে সন্তান রয়েছে। লিপাকে তার স্বামী রিপন আহমদ তালাক দিয়েছেন বলে জানা গেছে। এরপর থেকে লিপা নিজেকে অবিবাহিত পরিচয় দিয়ে ছেলেদের সাথে প্রথমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। পরে ছেলেদের সাথে শারিরীক সম্পর্ক টাকা হাতিয়ে নিয়ে তাদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা দেন। এমন প্রতারণার শিকার হয়েছেন বেশ কয়েকজন তরুণ। একাধীক ছেলেদের সঙ্গে লিপা আক্তারের অশ্লীল ভিডিও-ছবি রয়েছে।

গত ৬ এপ্রিল মৌলভীবাজার সদর থানায় বাহারমর্দন গ্রামের রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে একটি সাঁজানো মামলা করেন লিপা আক্তার। যার মামলা নং ০৬/৭৭/ তারিখ- ০৬/০৪/২০২০ ইং। লিপার এই সাঁজানো মামলায় পড়ে নিঃশ্ব হচ্ছে রফিকুল ইসলামের পরিবার। মামলাটি সমাধানের জন্য বড় অংকের টাকা দাবি করেন লিপা। সেই মামলাটি এখনো আদালতে চলমান রয়েছে।

লিপার প্রতারণার শিকার মৌলভীবাজারের রুবেল আহমদ। লিপার প্রতারণার ফাঁদে পড়ে সর্বশেষ দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন। এরকম আরও অনেক যুবককে প্রতারণার ফাঁদে পেলে হাতিয়েছে লাখ লাখ টাকা।

লিপা আক্তারের প্রতারণার বিষয়ে তার স্বামী রিপন আহমদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সে এক সময় আমার স্ত্রী ছিলো এখন আর নেই। লিপা একটা বাজে নারী বিধায় আমি তাকে আদালতের মাধ্যমে ছেড়ে দিয়েছি।

লিপা আক্তারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তারেকের এই টাকার বিষয়টি অস্বীকার করেন এবং ছেলেদের সাথে প্রতারণা করি আর যাই করি এটা আমার ব্যক্তিগত বিষয়। ছেলেরা আমার সাথে সম্পর্ক করে কেন? আমি কাউকে কিছু বলতে পারবো না। রিপন আহমদের সঙ্গে সংসার করেন কি না জানতে চাইলে, লিপা বলেন তার সাথে আমার কোন সম্পর্ক নেই। তবে আগে ছিলো।বিজ্ঞপ্তি

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

Development by: webnewsdesign.com