অব্যবহৃত থেকে গেলো হবিগঞ্জের ২১টি গণমিলনায়তন কেন্দ্রঃপ্রভাবশালীদের দখলে সরকারি সম্পত্তি

শনিবার, ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ১১:২৬ অপরাহ্ণ | 87

অব্যবহৃত থেকে গেলো হবিগঞ্জের ২১টি গণমিলনায়তন কেন্দ্রঃপ্রভাবশালীদের দখলে সরকারি সম্পত্তি

হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহার না হওয়ায় হবিগঞ্জের সমাজসেবা অধিদপ্তরের ২১টি গণমিলনায়তন কেন্দ্র প্রায় পরিত্যক্ত ও ধ্বংস হয়ে গেছে।তদারকির অভাবে সরকারের এই সম্পত্তি গুলো আস্তে আস্তে প্রভাবশালীদের দখলে চলে যাচ্ছে।

এদিকে,স্থাপনা গুলো বেহাত হয়ে গেলেও এ গুলোকে সংরক্ষণ অথবা ব্যবহার উপযোগী করার কোনো উদ্যোগও নেওয়া হচ্ছে না।সরকারি বরাদ্দ না পাওয়ায় উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না বলে জানিয়েছে সমাজসেবা অধিদপ্তর।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে,১৯৮৪-৮৫ সালে হবিগঞ্জের তিনটি উপজেলায় ২১টি গণমিলনায়তন কেন্দ্রের আধাপাকা ঘর নির্মাণ করে সরকার।এর মধ্যে নবীগঞ্জ উপজেলায় ১৫টি এবং মাধবপুর ও লাখাই উপজেলায় তিনটি করে ছয়টি।সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান,বিয়ে,আলোচনাসভা,প্রশিক্ষণে ব্যবহারের জন্য এ গুলো নির্মাণ করা হয়েছিল।

লাখাই উপজেলায় তিনটি গণমিলনায়তন কেন্দ্রের অবস্থান মুড়িয়াউক ইউনিয়নের তেঘরিয়া গ্রামে,মোড়াকরি ইউনিয়নের হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজের নিকটে ও বুল্লা ইউনিয়নের মাদনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে।

এ তিনটি কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়,ঘর গুলোর অবস্থা জরাজীর্ণ ও প্রায় ধ্বংস হয়ে গেছে।পরিত্যাক্ত অবস্থায় থাকার কারনে চুরি হয়ে গেছে চালের টিন,দরজা-জানালাসহ বিভিন্ন মালামাল।অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে থাকার কারণে আশপাশের প্রভাবশালী লোকজন এ গুলোতে নিজেদের কৃষিসহ বিভিন্ন কাজে ব্যবহৃত মালামাল রেখে দখল করে রেখেছেন।

একইভাবে অব্যবহৃত পড়ে রয়েছে নবীগঞ্জ উপজেলার ১৫টি এবং মাধবপুরের আরও তিনটি গণমিলনায়তন কেন্দ্র।তদারকির অভাবে ও পরিত্যাক্ত অবস্থায় থাকার কারনে এ গুলোর অধিকাংশই এখন প্রভাবশালীদের দখলে রয়েছে।

স্থানীয়রা জানান,নির্মাণের পর এ কেন্দ্র গুলোতে নারীদের বুনন,সেলাই,হস্তশিল্প,বাঁশ-বেতের কাজসহ বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হত।তবে কয়েক বছর পর থেকেই সমাজসেবা অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে ভবন গুলোতে আর কোন কার্যক্রম ও তদারকি করতে দেখা যায়নি।

সম্প্রতি বদলি হওয়া হবিগঞ্জ জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক হাবিবুর রহমান জানান,তিনটি উপজেলার ২১টি গণমিলনায়তন কেন্দ্র দীর্ঘদিন অব্যবহৃত থাকায় এগুলো পরিত্যক্ত হয়ে যাচ্ছে।সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন পর্যায়ের তরুণ-তরুণীদের এ গুলোতে এনে প্রশিক্ষণ দেওয়ার চেষ্টা করলেও অর্থ বরাদ্দের অভাবে তা করা যাচ্ছে না।

এ বিষয়ে হবিগঞ্জ নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আউয়াল তালুকদার বলেন,সরকার দেশ জুড়ে তরুণ ও যুব সমাজকে স্বাবলম্বী করতে নানা প্রশিক্ষণ দিচ্ছে।প্রশিক্ষণ দেয়ার জন্য সরকার কোটি কোটি টাকা খরচ করে নির্মাণ করছেন নতুন নতুন ভবণ তবে সরকার যদি নতুন নতুন ভবণের পাশাপাশি যদি এ কেন্দ্র গুলোকে তদারকি করে সংস্কারের মাধ্যমে ব্যবহার করার উপযোগি করে গ্রামীণ পর্যায়ের তরুণ-তরুণীদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার ব্যবস্থ করা যেতে পারে।এতে করে গ্রামীণ পর্যায়ের তরুণ-তরুণীরিা অতি সহজেই প্রশিক্ষণ নিতে পারবে ও নিজেদেরকে সাবলম্বি হতে পারবে।এতে
করে পরিত্যাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকা গণমিলনায়তন কেন্দ্র গুলো প্রভাবশালীদের দখল মুক্ত থাকবে ও সরকারের সম্পত্তি বেদখল হওয়া থেকে রক্ষা পাবে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

Development by: webnewsdesign.com