৭ নভেম্বর নিয়ে বিএনপির কর্মসূচি

রবিবার, ০৪ নভেম্বর ২০১৮ | ১০:৩৬ পূর্বাহ্ণ | 14

৭ নভেম্বর নিয়ে বিএনপির কর্মসূচি

আগামী ৭ নভেম্বর ‘বিপ্লব ও সংহতি দিবস’ উপলক্ষে দুদিনের কর্মসূচি দিয়েছে বিএনপি।

শনিবার নয়া পল্টরে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সভা শেষে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী সাংবাদিকদের এই কর্মসূচি জানান।

৭ নভেম্বর ভোরে কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ দেশের সব জেলা কার্যালয়ে দলীয় পতাকা তোলা হবে। সকাল ১০টায় দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরে ফুল দেওয়া হবে। পরদিন ৮ নভেম্বর বেলা ২টায় রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে হবে আলোচনা সভা।

এছাড়া বিএনপির সহযোগী সংগঠনগুলো আলাদাভাবে আলোচনা সভা, আলোকচিত্র প্রদর্শনী, রচনা প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করবে।

১৯৭৫ সালের ১৫ অগাস্ট জাদির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর রাজনৈতিক পালাবদলের এক পর্যায়ে সেনানিবাসে বন্দি মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান ৭ নভেম্বর মুক্ত হন।

ওই ঘটনায় ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসা জিয়া পরে রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করেন এবং বিএনপি দলটি গঠন করেন।

৭ নভেম্বর বিএনপি ‘জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস’ হিসেবে পালন করে।

রিজভী জানান, বৈঠকে ৬ নভেম্বর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশ নিয়েও আলোচনা হয়।

তিনি সম্প্রতি গ্রেপ্তার বিএনপির নেতা-মুক্তিদের মুক্তি দাবি করে বলেন, “প্রতিদিন গ্রেপ্তার হচ্ছে। এটা কিসের নমুনা? অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের নমুনা, না একতরফা নির্বাচনের নমুনা?”

মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে এই যৌথসভায় বিএনপির ঢাকা, টাঙ্গাইল, নরসিংদী, মুন্সীগঞ্জ, মানিকগঞ্জসহ পাশ-পাশের জেলাগুলোর সাবেক সাংসদ এবং জেলার সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকরা অংশ নেন। উপস্থিত ছিলেন সহযোগী সংগঠনের নেতারাও।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান বরকতউল্লাহ বুলু, মোহাম্মদ শাহজাহান, শামসুজ্জামান দুদু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমানউল্লাহ আমান, মশিউর রহমান, আবদুস সালাম, আবদুল হাই, তৈমুর আলম খন্দকার, কেন্দ্রীয় নেতা সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, ফজলুল হক মিলন, সানাউল্লাহ মিয়া, শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, গৌতম চক্রবর্তী, কামরুজ্জামান রতন, এবিএম মোশাররফ হোসেন,আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী, সাখাওয়াত হোসেন খান, এটিএম কামাল, তাইফুল ইসলাম টিপু, মুনির হোসেনম বেলাল আহমেদ, খন্দকার আবু আশফাক, শামসুল আলম তোফা, সোহরাবউদ্দিন সভায় উপস্থিত ছিলেন।

সহযোগী সংগঠনের নেতাদের মধ্যে ছিলেন আফরোজা আব্বাস, সুলতানা আহমেদ, সাদেক আহমেদ খান, মোরতাজুল করীম বাদুরু, নুরুল ইসলাম নয়ন, গোলাম সারোয়ার, সাইফুল ইসলাম ফিরোজ, নুরুল ইসলাম খান নাসিম, তকদির হোসেন জসিম, মীর হোসেন মীরু, সাইফুল ইসলাম পটু, হেলাল খান, মিলন মেহেদি, হুমায়ুন কবির খান, আবুল কালাম আজাদ, আবদুস সাত্তার পাটোয়ারি।

সূত্র: বিডিনিউজ২৪.কম

Development by: webnewsdesign.com